আইনের শিক্ষার্থী জিবু সফল উদ্যোক্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক
জান্নাতুল ফেরদৌস জিবু
জান্নাতুল ফেরদৌস জিবু। ছবি : সংগৃহীত

গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ১২তম ব্যাচের শিক্ষার্থী জান্নাতুল ফেরদৌস জিবু। গেল বছরে স্নাতক সম্পন্ন করেছেন। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি নানান ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হন। নীলফামারীতে আট বিঘা জমিতে ড্রাগন ফল, কফি, শরিফা ও রঙিন মাছের চাষাবাদ শুরু করেন।

জিবু বলেন, এখন কফি গাছ আছে দুই হাজারের ওপরে। ড্রাগন ফলের সংখ্যা বেড়েছে কয়েকগুণ। আমাদের কফির বাগান বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাগান।

জিবুরা তিন ভাই-বোন। তার বাবা সামরিক বাহিনীতে চাকরি করতেন। তার পরিবারে সবাই চাকরিজীবী। জিবুর পরিবারকে তার জন্য কোনো টাকা পাঠাতে হয় না। তিনি যা আয় করেন, সবটুকু নিজের কাছে রাখেন এবং ব্যবসায় বিনিয়োগ করেন।

নীলফামারীতে জন্মের পরে জিবু রংপুরে থাকতেন। স্কুল ও কলেজ শেষ হয় সেখানেই। পরে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিষয়ে পড়তে আসেন। ছোটবেলা থেকেই জিবুর চাকরি করার ইচ্ছে ছিল না।

বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালে মোটরসাইকেল কেনার জন্য বাড়ি থেকে সাড়ে ৩ লাখ টাকা নেন। কিন্তু তিনি এই টাকায় মোটরসাইকেল না কিনে পাঁচটি রিকশা কিনেন। এ থেকে যা আয় হতো, তা তিনি সঞ্চয় করতেন। বর্তমানে তার আটটি রিকশা রয়েছে।

জিবু স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করে স্নাতকোত্তর কিংবা চাকরির জন্য ছুটতে পারতেন। কিন্তু তিনি সেদিকে না গিয়ে রেস্টুরেন্ট দিয়েছেন, নাম ‘ওশান ব্লু’। এ বিষয়ে তিনি বলেন, রেস্টুরেন্ট আমার শখের জায়গা। ১৪ জানুয়ারি এই রেস্টুরেন্টের যাত্রা শুরু হয়। ইতোমধ্যে এখানে পাঁচজনের কর্মসংস্থান করেছি। তরুণদের সঙ্গে কাজ করতে আমার ভাল লাগে। আব্বু কোনো সাপোর্ট করেননি। একটি টাকাও না! ছোট মামা, খালু ও আম্মুর সহযোগিতায় শুরু করেছি।

বাসা থেকে টাকা এনে মোটরসাইকেল কেনা আর হয়নি। এখন আর কিনতেও চান না। প্রাইভেটকার কিনতে চান তিনি। তিনি বলেন, গাড়ি এখনই কিনতে পারি। কিন্তু তার পেছনে যে ব্যয় হবে, তা বহন করা এখন আমার জন্য কষ্টকর। তবে দ্রুত গাড়ি কিনবো। গাড়িটি উবারে দিব, কথা হয়েছে। মাঝে মধ্যে নিজের প্রয়োজনে ব্যবহার করবো।

রেস্টুরেন্ট চালু করতে বেশ টাকার প্রয়োজন ছিল। সব টাকা তার কাছে ছিল না। হতাশায় দিন কাঁটছিল তার। তাকে থেরাপিস্টের কাছেও যেতে হয়েছে, থেরাপি নিতে হয়েছে। তিনি বলেন, এ রেস্টুরেন্ট আমি শূন্য থেকে শুরু করেছি। আমার জমানো টাকা দিয়ে কাজ শুরু করি। ২ মাস ১২ দিন

শারীরিক ও মানসিক শ্রমের পর এ রেস্টুরেন্ট যাত্রা শুরু করে। এখন পর্যন্ত কোনো ব্যাংক বা মানুষের থেকে লোন করতে হয়নি।

জিবুর ওশান ব্লু রেস্টুরেন্টে ৫০ থেকে ৪৫০ টাকা মূল্যের খাবার রয়েছে। গণ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিন কিলোমিটার দূরে নবীনগর সেনা শপিং-মলের ছয়তলায় অবস্থিত এটি।

জান্নাতুল ফেরদৌস জিবু বলেন, যার মা আছে, তিনি কখনো গরীব নন। কিন্তু আমার আম্মুর কাছে এমন অর্থ নেই, যা দিয়ে আমাকে সাহায্য করবেন। মা সবসময় আমাকে অনুপ্রেরণা দেন। আইনে পড়লেই আইনজীবী হতে হবে, এমন কোনো কথা নেই।