আদিবা এখন লাখপতি

আদিবা এখন লাখপতি
দ্য স্টারলিং জোনের উদ্যোক্তা মোবাশশিরা দিদার আদিবা

লকডাউনের কারনে দীর্ঘদিন টিউশনি বন্ধ। হাতেও বেশ অবসর সময়। এসময় আর দশজন তরুণের মতো হতাশ না হয়ে উদ্যোক্তা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী মোবাশশিরা দিদার আদিবা। আদিবা পড়াশুনা করছেন ম্যানেজমন্ট বিভাগের। জেনারেশনের সাথে আড্ডায় জানালেন দ্য স্টারলিং জোন শুরুর গল্প।

শুরুতে আদিবার বিনিয়োগ ছিলো মাত্র এক হাজার টাকা। সেই টাকায় কেনা দুধ, আর ঘরে থাকা সহায়ক কিছু জিনিসকে মূলধন হিসেবে কাজে লাগান তিনি। ঘি, কাচাগোল্লা, দই, মজারেলা চিজ, মধু, ভিনেগার এই ছয়টি পণ্য নিয়ে ব্যবসা শুরু কেরন আদিবা। ধীরে ধীরে এ পণ্যগুলো মানুষের মন জয় করে নিতে সক্ষম হয়েছে।

আদিবা জানান, সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে তার পণ্যের চাহিদা। ইতোমধ্যেই তিনি পণ্যেও নিয়ে এসেছেন আরো কিছু বৈচিত্র্য। পণ্য তালিকায় নতুন করে যোগ করেছেন মধু, সরিষার তেল, নারকেল তেল, এ্যালোভেরা ওয়েল, পিংক সল্ট, চিয়া সিড, মেথি, কিশমিস, বাদাম আর জুম শাড়ি। তার সিগনেচার পণ্য হচ্ছে আপেল সিডার ভিনেগার উইথ মাদার। এটি ক্রেতাদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়ও বটে।

আদিবা প্রতিষ্ঠান দ্য স্টারলিং জোনের লগো

শুরুর দিকে পণ্য ডেলিভারি নিয়ে বেশ ঝামেলা পোহাতে হয়েছে জানিয়ে আদিবা বলেন, দিনে দিনে অভিজ্ঞতার ঝুলি বড় হওয়ার সাথে পণ্য ডেলিভারি ব্যবস্থাতেও পরিবর্তন আনার চেষ্টা করছি। যখনই সমস্যার মুখোমুখি হযেছি, সামনে থেকে সমাধানের চেষ্টা করেছি। ক্রেতাদের সন্তুষ্টি আদিবার প্রধার লক্ষ্য।

নিজের এই উদ্যোগকে ভবিষ্যতে অনলাইন সুপার শপ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে প্রত্যয়ী আদিবা। জানান, মূলধনের সীমাবদ্ধতা রয়েছে বলেই একটু একটু করে পথ চলা। তবে স্বপ্ন বড় হতে হবে। আমার এই উদ্যেগ দেশেসরা ব্র্যান্ড হবে একদিন, সেই প্রত্যয় নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং উদ্যোক্তাদের প্ল্যাটফর্ম ডিবিসি গ্রুপ থেকে ব্যবসায় প্রচার ও প্রসারে সহায়তা পাচ্ছেন। এই প্ল্যাটফর্মটি ব্যবহার করে তিনি পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়েরও সুযোগ পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন। সকলের কাছে দিনে দিনে ‘ভিনেগার আপু” হয়ে উঠাটাই তার আপাতত প্রাপ্তি। তবে হিসেবের জের টানে আদিবা জানান এই অল্প সময়ে ব্যবসায়ের মাধ্যমে তিনি লাখ টাকা উপার্জন করেছেন। এটা তার কছে অনেক বড় অর্জন।

ফেসবুক কমার্সের বদৌলতে নতুন যারা বিভিন্ন পেইজ খুলে ব্যবসায় শুরু করেছে এটি অবশ্যই একটি ভালো দিক। কিন্তু তারা যেন হুজুগে ব্যবসায়ী না হয়। কারন এতে নিজেরা যেমন টিকতে পারবে না অন্য ব্যবসায়ীদেরও ক্ষতি হবে। আর একজন লাখপতি হয়েছে দেখে আসলে ব্যবসা করা উচিত না। যা করবে তা সম্পর্কে পুরোপুরি জেনে-বুঝে শুরু করা উচিত বলে মনে করেন আদিবা।