ইতিবাচক চিন্তা পারে মানুষকে উদ্বেগমুক্ত রাখতে

ইতিবাচক চিন্তা পারে মানুষকে উদ্বেগমুক্ত রাখতে
ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ। ফাইল ছবি, সংগৃহীত।

বেসরকারী কোম্পানিগুলোতে এখন চলছে ছাটাই কার্যক্রম। নতুন নিয়োগ নেই বললেই চলে। তবে সরকারী চাকুরিতে ছাটাই নেই বললেই চলে, তবে নতুন নিয়োচে চলছে ধীরগতি। বহুজাতিক কোম্পানিগুলোতে কর্মী ছাটাই অনেকটাই কমে এসেছে। তবে দেশীয় করেপারেটগুলোতে যেসব সদ্য শেষ করা শিক্ষার্থীরা চাকুরি প্রত্যাশি ছিলেন তারা অনেকটাই হতাশায় ভূগছেন। তাইতো স্নাতকোত্তর শেষ পর্যায়ে থাকা শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া শেষ করার চেয়ে চাকুরি বাজার নিয়ে বেশি উদ্বেগে রয়েছে। সম্প্রতি অনলাইনে আয়োজিত “মেন্টাল ওয়েলবিং অ্যান্ড স্ট্রেচ ম্যানেজমেন্ট অব দি হিউম্যান বিং আন্ডার প্যান্ডেমিক সিচুয়েশন উইথ আনসার্টেইনিটি” শীর্ষ আর্ন্তজাতকি সম্মলেন এসব কথা বলেন বক্তারা। গতকালের আর্ন্তজাতকি সম্মলেন এ সংক্রান্ত একটি গবেষনা প্রবন্ধের প্রাথমিক ধারনা পত্র উপস্থাপন করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের আইবিএ অধ্যাপক ড. আইরিন খান। এছাড়া ভূটানের রয়েল থিম্পু কলেজের বিজনেস বিভাগের প্রোগ্রাম লিডার মাধব ভার্মা এবং একই কলেজের র্কমী টেনজিং চোডেং, জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক ড. মো. শাহিনুজ্জামান, ভারতের ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট (ইউইএম) অধ্যাপক ড. সুব্রত চট্টপাধ্যায় প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অঙ্গীভূত প্রতিষ্ঠান ঢাকা স্কুল অব ইকনোমিকস (ডিএসসিই) এর আয়োজনে ডিএসসিইর উদ্যোক্তা অর্থনীতি বিভাগের প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর প্রফেসর ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী সভাপত্তিতে আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন ডিএসসিইর গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ। সেমিনারে আরো বক্তব্য রাখেন উদ্যোক্তা অর্থনীতি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক রেহানা পারভীন ও সারাহ তাসনীম।

ড. আইরিন খান বলেন, দেশের কয়েকটি বহুজাতিক ও করপোরেট প্রতিষ্ঠান ছাড়াও সরকারের আমলাদের নিকট তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে কর্মী ছাটাই নেই বললেই চলে। তবে নতুন নিয়োগ খুব বেশি হচ্ছে না। আবার করপোরেট প্রতিষ্ঠানে নতুন নিয়োগ যেমন খুব সীমিত তেমনি চলছে ছাটাই। ফলে এসব প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের মধ্যে এক ধরনের উদ্বেগ কাজ করছে। আবার সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাদেও লেখাপড়া ও চাকুরির বাজার নিয়ে বেশ শঙ্কায় দিন পার করছেন। অনেক্ ক্ষেত্রে উদ্বেগ কমাতে টেলিভিশন দেখা কমিয়ে দিচ্ছেন তারা। বর্তমান পরিস্থিতিতে চাকরির সুরক্ষা অনেক গুরুত্বপূর্ণ এবং বেতন এবং অন্যান্য অর্থ প্রদান যথাযথ সময়ে হলে উদ্বেগ কমাতে সাহায্য করবে।

ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ বলেন, বর্তমান সময়ে দেশের ছাত্র-ছাত্রীরা বেশ চাপে আছে। ইতিবাচক চিন্তা পারে মানুষকে উদ্বেগমুক্ত রাখতে। সেখানে অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিস্থিতি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তবে এই প্রতিকূল পরিস্তিতিতে মানসিক প্রসান্তি রাখতে হলে অবশ্যই চিন্তাগুলোকে ইতিবাচক করতে হবে।

গতকালের প্রবন্ধগুলোর ওপর প্যানেল আলোচক হিসেবে ছিলেন কানাডার অটোয়া বিশ^বিদ্যালয়ের গবেষক সাজ্জাদ হোসেন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট এ্যান্ড বিজনেস প্রশাসনের ডিন ড. মো. মনিরুল ইসলাম, নাক কান গলা বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমেদ খান, ভারতের এমটিসি গ্লোবালের অধ্যাপক ড. ভোলানথ দত্ত ও খুলনা বিশ^বিদ্যালয়ের সোসিওলোজি বিভাগের অধ্যাপক ড. আবদুল্লাহ আবু সাইদ খান।

ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী বলেন, দেশের সংবাদপত্রগুলো মানুষের উদ্বেগ কমাতে সহযোগি হতে পারে। এক্ষেত্রে বেশি করে ইতিবাচক সংবাদ প্রদান করলে মানুষ আশাবাদি হতে পারে।

অংশগ্রহণকারীরা কানাডা, ফলিপিাইন, চীন, ভারত, থাইল্যান্ড, ভুটান এবং বাংলাদশে থকেে এসছেনে এবং মোট ৭৭ জন এই আর্ন্তজাতকি সম্মলেন অংশ নিয়েছিলেন।