এলিভেটর পিচ কি, কেন, কিভাবে

মাহতাব আব্দুল্লাহ মঞ্জুর

ধরুন আপনাকে নিজের সম্পর্কে, আপনার অর্জন আর প্যাশন সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলো।সময় দেয়া হলো ৩০ সেকেন্ড থেকে এক মিনিট।কল্পনা করুন আপনি কীভাবে বলবেন।

আমার এক বন্ধুর গল্প বলি।ওর নাম রাকিব।একদিন সে বসুন্ধরা সিটির লিফটে উঠছে।উঠেই দেখে ইগলুর সিইও স্যার ওর সামনে দাড়ানো।ওনাকে আগেও রাকিব ভার্সিটির কনফারেন্সে দেখেছে।লিফট উপরে উঠতে শুরু করেছে।রাকিব ভাবছিলো কীভাবে পরিচিত হওয়া যায় তার সাথে……

এই যে লিফটের ভেতরে অল্প সময়ে কারো সাথে পরিচিত হওয়ার জন্য নিজের যে ভাষণ,এটাই এলিভেটর পিচ।ইন্ট্রোডাকশন এর সাথে এর মূল পার্থক্য হলো এলিভেটর পিচ শেষ করতে হয় খুবই কম সময়ের ভেতর, ত্রিশ সেকেন্ড থেকে এক মিনিট এবং এই স্বল্প সময়ের মধ্যেই একটা ইম্প্রেশন তৈরি করতে হয়।

রাকিবের মাথায় একটা আইডিয়া খেলে গেল।সে বলতে শুরু করলো,
“আসসালামু আলাইকুম, স্যার।আমি রাকিব আল হাসান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রযুক্তি ইউনিটে ৩য় বর্ষে পড়ছি স্যার।আমি আন্তর্জাতিক ব্যবসায় ও সম্পর্কের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে স্টাডি করছি স্যার।আমার মনে হয় বাংলাদেশের কোম্পানিগুলোর অনেক বেশি সম্ভাবনা আছে বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে যাওয়ার।

স্যার,আমার মনে হয় বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের দক্ষতা উন্নয়নে আরো কাজ হতে পারে।আমাদের যেভাবে দেশ ও জাতিকে দেওয়া উচিত আমরা সেভাবে দিতে পারছিনা স্যার।

স্যার,কেস কম্পিটিশন করছি আর কিছু পুরস্কারও পেয়েছি।তার পাশাপাশি আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু সংগঠনে কাজ করছি আর আমার শক্তির দিক হচ্ছে লেখালেখি।স্যার বেশ কয়েকটা ক্লাব আমি লিটারেচার,বিজনেস কন্টেন্ট আর দক্ষতা বিষয়ক লেখালেখি করি স্যার।

স্যার,আপনাকে আমার ক্যাম্পাসে গত অনুষ্টানে দেখেছি স্যার।আপনার কথাগুলো খুব ভালো লেগেছে আমার।ভবিষ্যতেও এভাবেই অনুপ্রানিত করবেন স্যার।

স্যার,আপনার একটা কার্ড পেতে পারি?”””

এলিভেটর পিচ দেওয়ার সময় কিছু জিনিস খেয়াল রাখবেন।আপনি যার সাথে পরিচিত হচ্ছেন সে আপনাকে নাও চিনতে পারে অথবা পাত্তা নাও দিতে পারে।তবে আপনাকে থেমে গেলে চলবে না।নিজের পরিচয়,প্যাশন আর অর্জনগুলো চমৎকারভাবে তুলে ধরার মাধ্যমে পাত্তা আদায় করে নিতে হবে।

এই এলিভেটর পিচে কিছু জিনিস আমি মাথায় রেখেছিলাম।সেগুলো হলোঃ
১.আই কন্টাক:যার সাথে কথা বলছেন।
২.বডি ল্যাংগুয়েজ:ইতিবাচক।
৩.পজিটিভিটি:প্যাশন বর্ণনায় পজিটিভ থাকতে হবে।
৪.হাসিমুখ:আপনার হাসিমুখ আপনার আত্মবিশ্বাস ফুটিয়ে তোলে।
৫.আগ্রহ:পরিচিত হওয়ার ক্ষেত্রে আপনার আগ্রহ অপর ব্যক্তিকে মুগ্ধ করবে।

আর দেরি কেন,বিষয়গুলো মাথায় রেখে আজই বানিয়ে ফেলুন নিজের এলিভেটর পিচ।প্র‍্যাকটিস করুন এবং তৈরি করুন নিজের শক্ত একটা জায়গা।
শুভকামনা।