খুবির শিক্ষক বিশ্বসেরা পদার্থ বিজ্ঞানীর তালিকায়

নিজস্ব প্রতিবেদক
বিশ্বসেরা পদার্থ বিজ্ঞানীর তালিকায় খুবির শিক্ষক
বিশ্বসেরা পদার্থ বিজ্ঞানীর তালিকায় খুবির শিক্ষক। ছবি : সংগৃহীত

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) পদার্থবিজ্ঞান ডিসিপ্লিনের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান প্রফেসর ড. মো. হারুনর রশীদ খান গুগল স্কলার সাইটেশনের সংখ্যা অনুযায়ী বিশ্বসেরা পদার্থ বিজ্ঞানীদের তালিকায় স্থান পেয়েছেন। তিনি বিশ্বের সেরা ৯০০ পদার্থ বিজ্ঞানীর তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন।

রোববার (৬ ডিসেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রফেসর ড. মো. হারুনর রশীদ খান বর্তমানে লিয়েনে সৌদি আরবের কিং সৌদ ইউনিভার্সিটির পদার্থবিজ্ঞান এবং জ্যোতির্বিজ্ঞান বিভাগে অধ্যাপনায় নিযুক্ত রয়েছেন।

বিশ্বসেরা পদার্থবিজ্ঞানীর তালিকায় স্থান পাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান তাকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছেন।

এক অভিনন্দন বার্তায় তিনি বলেন, তার এই কৃতিত্ব বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ও ভাবমূর্তি বাড়িয়ে দিয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরা, ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ, বিজ্ঞান প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের ডিন প্রফেসর ড. আফরোজা পারভীন, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস, ডিসিপ্লিন প্রধান প্রফেসর ড. মো. রাশেদুর রহমান এবং ডিসিপ্লিনের সকল শিক্ষক তাকে অভিননন্দন জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ২০০৫ সালে প্রফেসর ড. মো. হারুনর রশীদ খান জাপান সোসাইটি ফর দ্য প্রমোশন অব সায়েন্স (জেএসপিএস) ফেলোশিপের আওতায় পোস্ট ডক্টরাল প্রোগ্রাম সম্পন্ন করেন। এর আগে তিনি ১৯৯৯ সালে জাপানের সাগা ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।

তিনি ইতালির দ্য আব্দুস সালাম ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর থিওরিটিক্যাল ফিজিক্সের (আইসিটিপি) নিয়মিত সহযোগী হিসেবে সাত বছর নিয়োজিত ছিলেন। এছাড়া ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে প্রায় পাঁচ বছর সৌদি আরবের কিং সৌদ ইউনিভার্সিটিতে লিয়েনে অধ্যাপনায় নিয়োজিত আছেন। আগামী ২০২১ সালের জানুয়ারিতে দেশে ফিরে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্থবিজ্ঞান ডিসিপ্লিনে যোগ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট, একাডেমিক কাউন্সিল, বোর্ড অব অ্যাডভান্সড স্টাডিজের সদস্য ছিলেন এই অধ্যাপক। এছাড়া তিনি বিজ্ঞান প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের ডিন, পদার্থবিজ্ঞান ডিসিপ্লিন প্রধান, খান বাহাদুর আহছানউল্লাহ হলের প্রভোস্ট, রিসার্চ সেলের পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।