দেশ গঠনে এগিয়ে আসা সকল তরুণ সংগঠনকে ধন্যবাদ জানালেন সজীব ওয়াজেদ

দেশ গঠনে এগিয়ে আসা সকল তরুণ সংগঠনকে ধন্যবাদ জানালেন সজীব ওয়াজেদ
প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে 'জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০২০' বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন

এই মহামারীর সময়ে দেশ ও সমাজের উন্নয়নে এগিয়ে আসা সকল তরুণদের এবং তাদের সংগঠনগুলোকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ। তিনি বলেন, যারা এখানে পুরস্কার পেয়েছেন এবং যারা পুরস্কার পাননি তাদের সবাইকে ধন্যবাদ। কেননা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিলো, তিনি বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। আপনারা সেই কাজটি করছেন।

তিনি বলেন, তরুণদের সংগঠনের কাজকর্ম দেখে আমি সবসময়ই অনুপ্রাণিত হই। এই যে ছোট ছোট সংগঠন এরা নিজেদের চিন্তা-ভাবনা দিয়ে পরিশ্রম দিয়ে মানুষের সমস্যার সমাধান করে যাচ্ছে। এই তরুণরা কারও কাছে নালিশ করছে না। এটাই হচ্ছে তাদের কাজ। অন্যের দিকে তাকিয়ে না থেকে নিজে নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

মঙ্গলবার রাত ৮টায় ইয়াং বাংলা আয়োজিত জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি আরো জানান, মহামারীর পরও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্ব গুণে দেশ এখনো অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে রয়েছে। যেখানে উন্নত দেশগুলো অর্থনৈতিক অবস্থা থমকে গেছে, সেখানে বাংলাদেশের অর্থনীতি এখনো পজিটিভ ধারায় রয়েছে বলে জানান তিনি।

এ সময় সজীব ওয়াজেদ বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে যখন বিভিন্ন উন্নত দেশে মৃত্যু হার অনেক বেশি, সেখানে আমাদের মৃত্যু হার কম। একটি মৃত্যুও অবশ্য কাম্য নয়। তারা (উন্নত দেশ) তাদের মেধাবী ডাক্তারদের কথা শোনেনি। কিন্তু আমরা শুনেছি।

তিনি তরুণদের উদ্দেশ্যে বলেন, দেশের প্রতিষ্ঠাকালীন মূলনীতি ধর্ম নিরপেক্ষতা থেকে আমরা কিছুতেই সরে আসতে পারিনা। আমরা যে ধর্মেরই হইনা কেন, আমরা সবাই বাঙ্গালী।

দেশ ও সমাজের উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাওয়া তরুণদের ৩০ সংগঠনের হাতে তুলে দেয়া হলো জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড। মঙ্গলবার রাত ৮টায় ইয়াং বাংলা আয়োজিত ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে এই ৩০ সংগঠনকে বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। ডা. নুজহাত চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিআরআই-এর ট্রাস্টি নসরুল হামিদ বিপু। ভার্চুয়াল এই অনুষ্ঠান শেষে বিজয়ীদের হাতে সার্টিফিকেট, ক্রেস্ট ও ল্যাপটপ পৌঁছে দেয়া হবে। এ ছাড়াও শীর্ষ মনোনয়ন পাওয়া সকল তরুণ সংগঠন পাবে সার্টিফিকেট।

প্রায় তিন লাখ সদস্য, ৫০ হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবী এবং ৩১৫টির বেশি সংগঠনকে সঙ্গে নিয়ে চলা ‘ইয়াং বাংলা’র লক্ষ্য- ‘ভিশন-২০২১’ এ দেশের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে তরুণ প্রজন্মকে সরাসরি অন্তর্ভুক্ত করা এবং তাদের নতুন ধারণা ও উদ্ভাবনকে বিশ্বে তুলে ধরা।