৩৪ বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা
ফাইল ছবি

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের হয়রানি কমাতে ৩৪টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষায় এগিয়ে এসেছে। তবে এর আওতাভুক্ত না হয়ে ভিন্ন পথে রয়েছে দেশের বড় চারটি বিশ্ববিদ্যালয়।

তবে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) জানিয়েছে, কাউকে জোর করে কিছু চাপিয়ে দেয়া হবে না। এ কার্যক্রমের আওতায় আসতে সকলের জন্য রাস্তা খোলা রয়েছে।

জানা গেছে, ২০২১ শিক্ষাবর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য এবার গুচ্ছ পদ্ধতিতে ৮টি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ১৯টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় যুক্ত হয়েছে। গত মার্চেই চারটির মধ্যে তিনটি প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় একসঙ্গে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে একমত হয়েছে। এর সঙ্গে সম্প্রতি বুয়েট যুক্ত হওয়ার ইচ্ছা ইউজিসিতে লিখিতভাবে জানিয়েছে।

এ ছাড়া বিশেষায়িত বাংলাদেশ টেক্সটাইল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এভিয়েশন অ্যান্ড অ্যারোস্পেস ইউনিভার্সিটিও গুচ্ছবদ্ধ হয়ে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার পক্ষে। কিন্তু এখনও ভিন্নপথেই হাঁটছে দেশের প্রাচীন চার বিশ্ববিদ্যালয়। বর্তমানে শতাধিক মেডিকেল কলেজে একটিমাত্র ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। এতে শিক্ষার্থীদের এক কলেজ থেকে আরেকটিতে দৌড়াতে হয় না।

ফলে বাড়তি অর্থ ব্যয় হচ্ছে না। ভোগান্তি আর হয়রানি থেকেও মুক্ত ভর্তিচ্ছুরা। এভাবে ভোগান্তিমুক্ত করতে সরকার প্রায় একযুগ ধরে গুচ্ছবদ্ধ বা অভিন্ন ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তির উদ্যোগ নেয়। এর অংশ হিসেবে গত বছর ৭টি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় একটিমাত্র পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করে। এ অবস্থায় চলতি বছর সরকার ফের একইভাবে গুচ্ছবদ্ধ ভর্তি পরীক্ষার উদ্যোগ নেয়। প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে ভিন্নমত থাকলেও বেশিরভাগই এগিয়ে এসেছে।

কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এখনও আলাদাভাবে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার পক্ষে অনড়। শুধু তাই নয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এ সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যও প্রকাশ করেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর গণমাধ্যমকে জানান, ‘দেশে ৪৯টি সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয় আছে। এসবের মধ্যে কয়েকটির কার্যক্রম শুরু হয়নি আর কয়েকটি স্নাতক পর্যায়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করে না। এ ছাড়া কলেজ পর্যায়ে পাঠদান এবং দূরশিক্ষণ পরিচালনা করছে দুটি। সেই হিসেবে মোট ৩৯টি ক্যাম্পাসভিত্তিক পাঠদান করে যেগুলো স্নাতকে শিক্ষার্থী ভর্তি করে। এর মধ্যে ৩৪টিই গুচ্ছবদ্ধ ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার পক্ষে একমত পোষণ করেছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছবদ্ধ ভর্তি পরীক্ষার ব্যাপারে গত ১ ডিসেম্বর ইউজিসির মধ্যস্থতায় একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেদিনই মূলত ১৯ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গুচ্ছে পরীক্ষা নেয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসে। এই গুচ্ছে নাম দেয়া হয়েছে জিএসটি (জেনারেল, সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি) বিশ্ববিদ্যালয়।

এ বছর এই গ্রুপের ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনের ব্যাপারে কমিটিতে যুগ্ম আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, ‘আগামী ১৯ ডিসেম্বর আমাদের গুচ্ছের বৈঠক আছে। সেদিন সব ভিসির মতামতের আলোকে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণের ব্যাপারে বিস্তারিত রোডম্যাপ তৈরি হবে।’