সোমবার, অক্টোবর ৩, ২০২২
Homeক্যারিয়ারউচ্চশিক্ষার জন্য যুক্তরাজ্যে যেতে প্রয়োজনীয় তথ্য

উচ্চশিক্ষার জন্য যুক্তরাজ্যে যেতে প্রয়োজনীয় তথ্য

উচ্চশিক্ষার জন্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের কাছে অন্যতম পছন্দের গন্তব্য যুক্তরাজ্য।প্রতিবছর উচ্চশিক্ষার জন্য যুক্তরাজ্য যাচ্ছেন অনেক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী। যুক্তরাজ্যে পড়তে যাওয়া সুযোগ বা চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে জানতে অনেকেই বেশ আগ্রহী। এই নিবন্ধে আমরা তুলে ধরার চেষ্টা করেছি সেরকম প্রয়োজনীয় কিছু তথ্য।

স্নাতক পর্যায়ে ব্যাচেলর ডিগ্রির জন্য যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করা যায়। বিশ্বমানের ২৪টি বিশ্ববিদ্যালয় যুক্তরাজ্যে রাসেল গ্রুপ নামে পরিচিত।তবে ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়, কার্ডিফ বিশ্ববিদ্যালয়, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়, বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়, ব্রিস্টল বিশ্ববিদ্যালয়সহ বৈশ্বিক র‌্যাংকিংয়ে এগিয়ে থাকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার পরে সরাসরি স্নাতক পর্যায়ে ভর্তির সুযোগ কম। ফাউন্ডেশন কোর্স করে স্নাতক পর্যায়ের প্রথম বর্ষে ভর্তি হওয়া যায়। এ লেভেল–ও লেভেলে পড়া শিক্ষার্থীরা সরাসরি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন করতে পারেন।

বৃত্তির সুযোগ 

স্নাতক পর্যায়ে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে বৃত্তি ও আর্থিক সহযোগিতা, ফেলোশিপের সুযোগ কম। তিন থেকে পাঁচ হাজার পাউন্ডের বৃত্তির জন্য অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভীষণ প্রতিযোগিতা করতে হয়। শতভাগ বৃত্তি স্নাতক পর্যায়ে নেই বললেই চলে। রাসেল গ্রুপের বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা কিছু বৃত্তির সুযোগ পান। তবে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে বৃত্তির যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। সরকারিভাবে মাস্টার্স ও পিএইচডির জন্য কমনওয়েলথ স্কলারশিপ ও শুধু মাস্টার্সের জন্য চিভনিং বৃত্তি আছে। অনেক সময় বিভিন্ন গবেষণার ক্ষেত্রে অধ্যাপকরা নিয়মিত পিএইচডির জন্য বৃত্তি দেন। 

সরকারি বৃত্তির যোগ্যতা 

কমনওয়েলথ বৃত্তি ও চিভনিং বৃত্তির জন্য স্নাতক পর্যায়ে ফলাফল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পাশাপাশি নেতৃত্বের যোগ্যতা, সামাজিক বিভিন্ন কাজে সংশ্লিষ্টতা, পেশা ও গবেষণাক্ষেত্রে সংযুক্তিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়। মাস্টার্স পর্যায়ে চিভনিং বৃত্তির মাধ্যমে প্রতিবছর বাংলাদেশের শিক্ষার্থী, গবেষক ও পেশাজীবীরা পড়ার সুযোগ পাচ্ছেন নিয়মিত। বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা নেটওয়ার্কিং দক্ষতা বিকাশেরও সুযোগ পান। ২০২৩-২৪ সেশনের চিভনিং বৃত্তির জন্য আবেদনপত্র গ্রহণ চলছে। বিস্তারিত: www.chevening.org/scholarship/bangladesh/

অন্যান্য বৃত্তি 

রাসেল গ্রুপের কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছু বৃত্তি চালু আছে। বৃত্তি সম্পর্কে বিস্তারিত বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে। যুক্তরাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বিভিন্ন দাতব্য প্রতিষ্ঠান নিয়মিত বৃত্তি দেয়। এন্ড্রু কার্নেগির অনুদানে কার্নেগি-ক্যালেডোনিয়ান স্কলারশিপ দেওয়া হয় স্কটল্যান্ডে। প্রতি বছর ১৫ জন পিএইচডি গবেষক এই বৃত্তি পান। এ ছাড়া ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক থেকে নিয়মিত বেশ কিছু পিএইচডি স্কলারশিপ দেওয়া হয়।

আইইএলটিএস স্কোর 

ভর্তির প্রতিযোগিতায় টিকতে আইইএলটিএস একটা গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা। নির্দিষ্ট স্কোর অর্জন করার মাধ্যমে ভর্তির যোগ্যতা অর্জন করতে হয়। তবে এই স্কোর বৃত্তিতে ভূমিকা রাখে না। অধিকাংশ বৃত্তির আবেদন আইইএলটিএসের স্কোর ছাড়াই করা যায়। তবে, আইইএলটিএস স্কোরকে হালকাভাবে নেওয়ার সুযোগ নেই। ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য ৬.৫ থেকে ৭.৫ স্কোর প্রয়োজন হয়।

পড়াশোনার ধরন 

যুক্তরাজ্যে পড়াশোনার ধরনে ব্যবহারিক প্রয়োগ বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়। বাস্তব জীবনের নানা সমস্যা ও পরিস্থিতি, গ্রুপওয়ার্ক, ওয়ার্ক সিমুলশনের মাধ্যমে ভবিষ্যৎ কর্মক্ষেত্রের জন্য প্রস্তুত করা হয়। ইউরোপের অন্য দেশের চেয়ে যুক্তরাজ্যের পড়াশোনার কাঠামো আন্তর্জাতিক মানের ও আধুনিক। 

জীবনযাত্রার মান ও খরচ 

বিশ্ববিদ্যালয়ভেদে যুক্তরাজ্যে খরচ ভিন্ন। রাসেল গ্রুপে সংযুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ব্যয় বেশি, সুযোগ-সুবিধাও আন্তর্জাতিক মানের অবশ্য। এমনিতে জীবনযাত্রার মান যুক্তরাজ্যের সব জায়গায় প্রায় একই রকম। দক্ষিণে ব্যয় একটু বেশি। লন্ডনের সঙ্গে ম্যানচেস্টারে একই ধরনের বাড়ির ভাড়ার পার্থক্যটা চোখে পড়ার মতো। সুযোগ-সুবিধার পার্থক্য খুব বেশি নেই। লন্ডনে চাকরির সুযোগ বেশি, কিন্তু চাকরির অবেদনকারীর সংখ্যাও অনেক বেশি। উত্তরের শহর ম্যানচেস্টার, লিডস, লিভারপুল বা শেফিল্ডে খরচ কম, কিন্তু বেতন কাঠামো একই।

বৃত্তি ছাড়া পড়ার খরচ

আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তি ছাড়া পড়ার খরচ অনেক বেশি। বিশ্ববিদ্যালয়ভেদে মাস্টার্স শ্রেণিতে বৃত্তি ছাড়া পড়তে বছরে ১০ থেকে ১৬ হাজার পাউন্ডের মতো খরচ পড়ে। বিশ্ববিদ্যালয়ভেদে টিউশন ফিতে পার্থক্য আছে। রাসেল গ্রুপের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে টিউশন ফি প্রায় ২৫ থেকে ৩৫ হাজার পাউন্ড। মধ্যম মানের বিশ্ববিদ্যালয়ে ফি ১৪ থেকে ১৮ হাজার পাউন্ড। থাকা-খাওয়ায় মাসে আটশো থেকে হাজার পাউন্ড লেগে যায়।

পড়ালেখার পাশাপাশি কাজ করার সুযোগ 

যুক্তরাজ্যে একজন শিক্ষার্থী পড়ালেখার পাশাপাশি সপ্তাহে ২০ ঘণ্টা কাজ করার অনুমতি পাচ্ছেন। সরাসরি ব্যবসা, ফ্রিল্যান্সিং করার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আছে। অনেক শিক্ষার্থী স্থানীয় বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে চাকরি করে। এছাড়াও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গবেষণা সহযোগী হিসেবে কাজ করা যায়।

পড়ালেখা করে যুক্তরাজ্যে চাকরির সুযোগ 

ইউরোপের একটি উন্নত দেশ হিসেবে পড়াশোনার পর আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের গবেষণার যেমন সুযোগ থাকে, তেমনি চাকরির অনেক সুযোগ আছে। মেধাবী শিক্ষার্থীদের যুক্তরাজ্যের বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে কাজের সুযোগ আছে। অনেক শিক্ষার্থীই এখানে উচ্চশিক্ষা শেষ করে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ যেমন ফ্রান্স, স্পেনে চাকরির সুযোগ পায়। ব্রেক্সিটের পরে যুক্তরাজ্যে কাজের সুযোগ বাড়ছে। আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য “স্কিলড ওয়ার্কার ভিসা” চালু করা হয়েছে। বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা গ্র্যাজুয়েট ভিসার মাধ্যমে স্নাতক-মাস্টার্সের পরে দুই বছর, পিএইচডির পরে তিন বছর কাজের অনুমতি পাচ্ছে। কোভিড মহামারির পরিপ্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যসংশ্লিষ্ট পেশার জন্য বিশেষ কাজের স্কিম চালু করা হয়েছে। মেডিকেল ও জনস্বাস্থ্য বিষয়ে পড়ুয়াদের চাকরির অনেক সুযোগ আছে।

সর্বাধিক প্রচারিত