শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২২
Homeক্যারিয়ারনিউজিল্যান্ডে উচ্চশিক্ষার বিস্তারিত

নিউজিল্যান্ডে উচ্চশিক্ষার বিস্তারিত

পৃথিবীর অন্যতম দুর্নীতিমুক্ত এবং শান্তিপূর্ণ দেশ নিউজিল্যান্ড। চমৎকার প্রাকৃতিক পরিবেশ পরিমণ্ডিত এই দেশটি বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য সেখানে স্থায়ী বসবাসের সুযোগ উন্মুক্ত করেছে। দেশটি তার একাডেমিক শ্রেষ্ঠত্বের জন্য বিশেষ করে উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থায় বিশ্বব্যাপী খ্যাতি অর্জন করেছে। শুধু বাংলাদেশ থেকেই নয়, প্রতিবছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিক্ষার্থী নিউজিল্যান্ডে উচ্চশিক্ষা নিতে যায়। 

শিক্ষাগ্রহণের জন্য চমৎকার প্রতিবেশ

নিউজিল্যান্ড বিশ্বের দ্বিতীয় নিরাপদ দেশ। এখানে নিরাপত্তার প্রশ্নে স্থানীয় ও বিদেশীদের মধ্যে কোনো পার্থক্য পাবেন না। উপরন্তু, এটি ডেনমার্কের পাশাপাশি বিশ্বের সবচেয়ে কম দুর্নীতিমুক্ত দেশ। তার মানে আপনি কোনো বাধা ছাড়াই সেখানে আপনার অধিকার ভোগ করবেন। আরও গুরুত্বপূর্ণ হলো নিউজিল্যান্ডের নাগরিকরা বেশ বন্ধুত্বপূর্ণ এবং বিদেশীদের সঙ্গে তাদের আচরণও একই রকমের। ফলে আপনার কাছে সেটা নিজ বাড়ির মতোই মনে হবে।

তুলনামূলক কম খরচে মানসম্পন্ন জীবনযাপন

যদিও নিউজিল্যান্ডে বসবাসকারী লোকেরা উচ্চবিলাসী জীবনযাপন করে, তবুও সেখানে বসবাসের খরচ তুলনামূলকভাবে কম। শিক্ষার্থীরা সে দেশে মাসে ৩০ হাজার টাকারও কমে নিজেদের ভরণপোষণ করতে পারে। এছাড়া, খণ্ডকালীন চাকরি থেকে মাসিক খরচের চেয়ে বেশি পরিমাণ উপার্জনের সুযোগ রয়েছে।

চিত্তাকর্ষক উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থা

নিউজিল্যান্ডের চিত্তাকর্ষক উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থার আন্তর্জাতিক খ্যাতি রয়েছে। এখানে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা শুধু বৈশ্বিক ডিগ্রি অর্জন করে না বরং জ্ঞান-অভিজ্ঞতাও অর্জন করবে।দেশটিতে উচ্চশিক্ষায় বর্তমান বিশ্বের চাহিদার ওপর জোর দেযওয়া হয়। তাই, নিউজিল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি থেকে স্নাতক হয়ে আপনি আন্তর্জাতিক চাকরির বাজারে নিজেকে যোগ্য হিসেবে আবিষ্কার করবেন।

বিশ্বের শীর্ষ ৫০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে নিউজিল্যান্ডের সব বিশ্ববিদ্যালয় 

নিউজিল্যান্ডের পুরো উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থা দুটি প্রধান দ্বীপ- উত্তর এবং দক্ষিণে অবস্থিত মাত্র আটটি বিশ্ববিদ্যালয় দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। আশ্চর্যজনকভাবে, আটটি বিশ্ববিদ্যালয়ই বিশ্বের শীর্ষ ৫০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনন্য আন্তর্জাতিক খ্যাতি থাকায় আপনি দেশটির যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয় চোখ বুজে বেছে নিতে পারেন।

সাশ্রয়ী টিউশন ফি,সহ পড়ার জন্য সেরা বিষয়

নিউজিল্যান্ডের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে স্নাতক, মাস্টার্স বা পিএইচডি ধাপে বিভিন্ন ধরণের বিষয়ে অধ্যায়নের সুযোগ রয়েছে। নিউজিল্যান্ডের প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের শিক্ষার্থীদের জন্য সেরা প্ল্যাটফর্ম প্রদান করে, বিশেষ করে যারা কৃষি, নির্মাণ এবং পর্যটন শিল্পে ক্যারিয়ার আগ্রহী। এছাড়া বিশ্বের অন্য দেশের তুলনায় নিউজিল্যান্ডের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো স্নাতক এবং মাস্টার্স প্রোগ্রামগুলোর জন্য তুলনামূলকভাবে কম টিউশন ফি নেয়।

পিএইচডি ও কাজের সুযোগ

নিউজিল্যান্ডে স্থায়ীভাবে বসবাসের পরিকল্পনা থাকলে সেখানে পিএইচডি শুরু করা সবচেয়ে ভালো সিদ্ধান্ত। আন্তর্জাতিক ছাত্রদের সেখানে স্থায়ী বসবাসের জন্য অনুপ্রাণিতও করছে দেশটি। পিএইচডি করার সময় সেখানে শিক্ষার্থীদের সীমাহীন ঘন্টার জন্য কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয়। এছাড়াও, ডিগ্রি অর্জনের জন্য আপনার নিয়মিত বিশ্ববিদ্যালয়ে উপস্থিতি এবং পরীক্ষায় বসার কোনো চাপ নেই। অনলাইনে সুপারভাইজারের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে মাসে একবার সাক্ষাতের মাধ্যমে আপনি কোর্স শেষ করতে পারবেন। পিএইচডি শেষ করার পরে আপনাকে নিউজিল্যান্ডে কাজ করার জন্য অতিরিক্ত দুই বছর সময় দেওয়া হবে, যা আপনার অভিজ্ঞতাকে বাড়িয়ে তুলবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, পশ্চিমা দেশগুলোতে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য পিএইচডি করা বেশ ব্যয়বহুল। তবে, এই ধরনের ক্ষেত্রে নিউজিল্যান্ড ব্যতিক্রম।তারা স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক ছাত্রদের মধ্যে কোনো পার্থক্য করে না। আপনি বছর ৪ হাজার ডলার খরচে পিএইচডি করতে পারবেন। পিএইচডি চলাকালীন আপনার বাইরে কাজের সুযোগ তো থাকছেই আবার বিশ্ববিদ্যালয় বা সরকার থেকে তহবিল মঞ্জুর করলে আপনাকে সেখানে টিউশন দিতে হবে না। 

শিক্ষার্থীদের কাজ করার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট সময়সীমা নেই

স্নাতক এবং মাস্টার্সের আন্তর্জাতিক ছাত্রদের সেখানে সীমিত ঘন্টার জন্য কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয়, যা গড়ে সাপ্তাহিক ২০ ঘন্টা।তবে এই সময়ও দেশটিতে ভালো পরিমাণ উপার্জনের জন্য যথেষ্ট। আর আপনি যদি একজন পিএইচড ‘র শিক্ষার্থী হন তবে সেখানে আপনি যতক্ষণ ইচ্ছা কাজ করতে পারবেন। যা আপনাকে আরও অভিজ্ঞতা অর্জনের যথেষ্ট সুযোগ দেবে।

উচ্চশিক্ষা শেষে কাজ ও স্থায়ী বসবাসের সুযোগ

নিউজিল্যান্ডে অধ্যয়ন শেষে শিক্ষার্থী ভিসাকে কাজের ভিসাতে পরিবর্তনের সুযোগ রয়েছে। নিউজিল্যান্ডই একমাত্র দেশ যেখানে মাত্র দুই থেকে তিন বছর থাকার পর আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য আবেদন করার সুযোগ পায়। 

ইংরেজি ভাষায় দক্ষতার সুযোগ

নিউজিল্যান্ড বিশ্বের সেই পাঁচটি দেশের মধ্যে একটি যেখানে সরকারি ভাষা ইংরেজি। অতএব, এই পরিবেশে অধ্যয়ন এবং জীবনযাপনের মাধ্যমে আপনি ইংরেজি ভাষার দক্ষ হওয়ার সুযোগ পাবেন। তাছাড়া, আপনি যদি এই সুন্দর দেশ থেকে কোনো ডিগ্রি সম্পন্ন করেন, তাহলে আইইএলটিএস, টোফেল অন্যান্য ইংরেজি ভাষা পরীক্ষার মাধ্যমে আপনার ইংরেজি ভাষার দক্ষতা দেখিয়ে বিশেষ সুবিধাও পাবেন। 

ভর্তি এবং ভিসার জন্য নমনীয় 

নিউজিল্যান্ডের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কঠিন প্রতিযোগিতা নেই বা উচ্চতর ডিগ্রির কোর্সে ভর্তির জন্য অনেক বেশি যোগ্যতারও প্রয়োজন নেই। এই ধরনের নমনীয়তার পিছনে কারণ হলো, নিউজিল্যান্ড সরকার তাদের উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থার বিকাশের জন্য প্রচুর পরিমাণে অর্থ বিনিয়োগ করে। আর তাই, ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীর সংখ্যার চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষমতা বেশি। কখনও কখনও যদিও কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে আইইএলটিএসের প্রয়োজন হয়, তবে সেক্ষেত্রেও আপনার পূর্বের পড়াশোনা ইংরেজি মাধ্যমে হলে ছাড় দেওয়া হয়। তাছাড়া, নিউজিল্যান্ড অভিবাসনের জন্য আপনাকে জীবনযাত্রার ব্যয়ের জন্য অনেক বেশি সঞ্চয় দেখাতে হবে না। আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে মাত্র ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা দেখালেই চলবে। আপনাকে যেটি সবচেয়ে গুরুত্ব দিয়ে উপস্থাপন করতে হবে তা হলো- আপনি নিউজিল্যান্ড থেকে ডিগ্রী পেতে সত্যিকার অর্থে প্রচণ্ড আগ্রহী।

সর্বাধিক প্রচারিত